test slide image 1
test slide 2
Teachers

অধ্যক্ষের বানী

আনন্দ ধরা বহিছে ভুবনে

সবুজ বনবীথিতে ঘেরা সাভার এলাকার শিক্ষার আলো বিস্তারে শত বছর ধরে সেন্ট যোসেফস্ বিদ্যালয় মাটির প্রদীপের মতো হাজারো মানুষের মনে জ্ঞানের আলো বিতরণ করে আসছে। 1969 খ্রিঃবর্ষে ধর্মপল্লীর কয়েকজন বিদুৎসাহী সচেতন ব্যক্তি তৎকালীন পাল-পুরোহিত এর সহায়তায় আর্চ বিশপের অনুমোদন ক্রমে সেন্ট যোসেফস্ উচ্চ বিদ্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এর ছাত্র/ছাত্রী সংখ্যা 1100 জন। বর্তমান অধ্যক্ষ যিনি 2011 সন থেকে এ প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। সভাপতি ফাদার কমল কোড়াইয়া। কালের পূর্ণতায় বিদ্যালয়টি বিংশ শতাব্দীর এ মাহেন্দ্র ক্ষনে কলেজ শাখায় রুপান্তরিত হয়েছে তা কতইনা আনন্দের কতই না উল্লাসের। আশীর্বাদিত এক্ষণে অন্তর আত্মা প্রেমময় সৃষ্টিকর্তার বন্ধনাগানে বিমোহিত। যারা এর বীজ বপন করে শত প্রতিকূলতার মধ্যে ও সন্তানতূল্য যত্ন ভালবাসায় এর শ্রীবৃদ্ধি ঘটিয়েছেন, যা আজ ডাল-পালা মেনে ফুল ও ফল দান কারী মহীরোহ হিসাবে অনেকের আশারস্থল  হয়ে দাঁড়িয়েছে তাদের সকলের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞা।

সেন্ট যোসেফস্ উচ্চ বিদ্যালয় আজ হতে কলেজ পর্যায়ে উন্নীত হলো এখন থেকে এই প্রতিষ্ঠানটি নাম- সেন্ট যোসেফস্ হাই স্কুল এন্ড কলেজ। অত্র এলকার  জনগনের অতীব প্রত্যাশা ছিল যেন বিদ্যালয়টি কলেজ শাখায় রূপান্তরিত হয়। আর দীর্ঘ্ দিনের লালিত স্বপ্ন আজেই র্পূন হতে চলছে। আর এরই মধ্য দিয়ে এলাকার প্রতিটি মানুষ বিশেষ করে মেয়েরা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে মাথা উচু করে দাড়াবে, পরিবার, সমাজ, জাতীয় পর্যায়ে নেতৃত্বে নিতে সক্ষম হবে। এ ক্ষেত্রে বিশ্ব বিজয়ী সম্রাট নেপেলিয়ানের বিখ্যাত উক্তি স্মরণ যোগ্য আমাকে একটি শিক্ষিত মা দাও আমি তোমাদের একটি জাতি উপহার দেব।

আমাদের দেশে নারীদের উচ্চ শিক্ষার ক্ষেত্রে এখনও রয়েছে হাজারো প্রতিবন্ধকতা। কুসংস্কার, পারিবারিক ও সামাজিক বৈষম্য মূলক আচরণ, গোড়ামি, নিরাপত্তাহীনতা সহ আলো কত কি। পারিপার্শ্বিক চাপে কত শত মেয়ে শিশুর লেখাপাড়া করার অধিকার কেড়ে নেওয়া হচ্ছে বাল্যবিয়ে দেয়া হচ্ছে, জীবনের সৌন্দয
হারিন ভয় হুমকি দেখানো হচ্ছে। এসব কিছুর হাতছানি ডিঙ্গিয়ে সঠিক লক্ষ্যে পৌছে দেয়ার মানকে শুধুমাত্র মেয়েদের নিয়ে কলেজ এর পথ চলা। নানা সীমাবদ্ধতা, অপারগতা থাকা সত্বেও  ঢাকা জেলার উপকন্ঠে গড়া উঠা সরকার কর্তৃক অনুমোদিত কাথলিক চার্চ পরিচালনার মিণারীদেরদ্বার পরিচালিত এ কলেজ।

 

পরিশেষে যাদের পরিশ্রমের ফলে এ স্মরণিকা হাতে পেয়েছি বিশেষ করে স্কুল এন্ড কলেজের পরিচালনা পরিষদ, স ম্পাদক মন্ডলী শিক্ষকমন্ডলী, প্রাক্তন ছাত্র ও শুভানুধ্যায়ী, বিজ্ঞপন দাতাগণ সকলের প্রতি রইল আমার আন্তরিক কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ। প্রত্যাশা রাখি এ স্মরণিকা বতমান প্রজন্মকে। অত্র প্রতিষ্ঠানের অতীত ঐতিহ্যের সাথে পরিচয় করে দেবে এবং স্বণার্লী ভবিষ্যৎ রচনায় সঞ্জীবনী শক্তিদান করবে। সেন্ট যোসেফস্ হাই স্কুল এনু্ড কলেজ এর দ্বার সকলের জন্য উন্মুক্ত সকলকে সুস্বাগতম। কলেজ শাখার  উদ্বোধন ও নবীন বরণ অনুষ্ঠান উপলক্ষে্ সকলকে জানাই আন্তরিক প্রীতি-শুভেচ্ছা ও অভিন্দন।

 

অধ্যক্ষ

সেন্ট যোসেফস্ হাই স্কুল এন্ড কলেজ, ধরেন্ডা

সাভার, ঢাকা।